Blog Details

চোখের আঘাত

  • 16 Apr 2022
  • Eye care

             ★চোখের আঘাত ও করণীয় বিষয়বস্তু:– 

চোখ সংবেদনশীল এবং অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ।যেকোনোভাবে চোখে আঘাত লাগতে পারে তা হতে পারে নিজের হাত দ্বারা, গৃহস্থলীর কাজ করার সময়, ঝুঁকিপূর্ণ পেশা ভিত্তিক কাজের সময়, পথে দুর্ঘটনার জন্য,খেলার, মারামারির সময়।সচেতন থাকলে বেশিরভাগ সময়ই তা প্রতিরোধ করা সম্ভব এবং এর ক্ষয়ক্ষতিও। চোখের বিভিন্ন ধরনের আঘাত ও এর করণীয় সম্পর্কে আলোচনা করতে চাই। 

★চোখে কিছু ঢুকে গেলেঃ লোহার গুঁড়া, কাচঁ, ইটের টুকরো, সূঁচালো পদার্থ বা এরকম যেকোন জিনিস ঢুকে গেলে কোনোভাবেই নিজে থেকে বের করার চেষ্টা করা যাবে না।চোখ কচলে বা চেপে ধরে কোন রকম চেষ্টা করতে গেলে চোখের আঘাত আরো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই তাকে প্রথমিক চিকিৎসা দিয়ে যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের নিকট নিয়ে যেতে হবে। 
 

★চোখে রাসায়নিক পদার্থ পড়লে : বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিক পদার্থ যেমন- চুন, অ্যাসিড, গ্লাস ক্লিনার, বা এ ধরনের পদার্থ পদার্থ চোখে লাগলে সঙ্গে সঙ্গে প্রচুর পানি দিতে হবে।না হলে এসব বিপদজনক উপাদান চোখের ভেতরের অংশের ঢুকে যেতে পারে।  যার ফলস্বরূপ দৃষ্টিশক্তি হারানোর সম্ভাবনা থাকে।প্রচুর পরিমাণে পানির ঝাপটা চোখে দিয়ে চোখ পরিষ্কার করলে 90 শতাংশ ক্ষেত্রে চোখে রক্ষা পাওয়া যায়।এক্ষেত্রে স্যালাইন পানি পেলে ভালো, না পেলে পরিষ্কার পানির ঝাপটা দিয়ে চোখ পরিষ্কার করতে হবে।তারপর তাকে চিকিৎসকের নিকট নিয়ে যেতে হবে। 

★অন্য কোনোভাবে আঘাত লাগলেঃ খেলার মাঠে বল, কর্ক এসব দিয়ে বা বাড়িতে কোমল পানীয়ের ক্যাপ খুলতে গিয়ে চোখে আঘাত লাগতে পারে।এরকম অবস্থায় প্রচুর পরিমাণে বিশুদ্ধ পানি দিয়ে ভালোভাবে চোখ ধুয়ে ফেলতে হবে।এরপরে রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। সম্ভব হলে হাসপাতালে যাওয়ার আগেই কোনো ওষুধের দোকান থেকে আইপ্যাড কিনে সেটা ব্যবহার করা যেতে পারে। (আইপ্যাড হল তুলা দিয়ে তৈরি একটি জিনিস যা চোখের ওপর লাগিয়ে রাখলে ঢেকে রাখা যায় এতে চোখ বিশ্রাম থাকবে আর বাহিরের কোন ধরনের ময়লা চোখে প্রবেশ করতে পারবে না) আঘাতের ধরন অনেক গুরুতর হলে অনেক সময় রোগীকে অস্ত্রোপচার করার সময়ে অজ্ঞান করে নেওয়ার প্রয়োজন হতে পারে। রোগীকে অচেতন করার আগে কমপক্ষে 6 ঘন্টা তাকে না খাইয়ে রাখতে হয়।তাই চোখের আঘাত বড় হলে তখন থেকেই  আহত ব্যাক্তির খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করা উচিত।কারণ অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন পড়লে তৎক্ষনাৎ  দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়। 

★চোখে ধানের আঘাতঃ ধান রোপন,নিড়ানো, কাটা,মাড়াই,শুকানো,শুকানো সময়ে বিশেষত: কর্নিয়াতে আঘাত লেগে থাকে। এছাড়াও সবজির পাতা, ভুট্টা, গম, আখ চাষের সময় চোখে আঘাত লাগতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এগুলো সামান্য আঘাত তবে,এসবের গায়ে জীবাণু,ফাঙ্গাস,ভাইরাস থাকে আঘাতের পর পর পানি দিয়ে বার বার ধৌত করতে হবে। কর্নিয়াতে রক্তনালী নেই। চোখের গুরুত্বপূর্ণ অংশটি নাজুক, সহজে ঘা বা আলসার হয়।শুকালেও দাগ থাকে, দৃষ্টিস্বল্পতা থেকে দৃষ্টিহীনতা হতে পারে।তাই কৃষি কাজের সময় চোখে আঘাত না লাগে এমন চশমা ব্যবহার করা জরুরী। উপরন্তু  চোখে আঘাত লাগলে চোখে পানি দেয়া যাবে না। আর যত দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যেতে হবে। পরবর্তী নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত চোখে পানি দেওয়া যাবে  না ও রঙিন চশমা ব্যবহার করতে হবে। 

'ভিশন আই হসপিটাল - চোখের ভাষা বোঝে' 

𝐕𝐢𝐬𝐢𝐨𝐧 𝐄𝐲𝐞  𝐇𝐨𝐬𝐩𝐢𝐭𝐚𝐥
📞 𝐀𝐩𝐩𝐨𝐢𝐧𝐭𝐦𝐞𝐧𝐭&&☎️𝐇𝐨𝐭𝐥𝐢𝐧𝐞:09610244123
www.visioneyebd.org
https://www.pinterest.com/visioneyebd/
https://twitter.com/visioneyebd 
infovisioneyebd@gmail.com 

#eyes #eyehealth #eyetips #eyehospital #visioneyehospital #eyecaretips #eyeproblem #eyesolution #healthyeyes #eyedoctor #eyespecialist #eyesurgeon #eyesurgery #eyetreatmentserummsglow #eyetreatment #glaucomaspecialist #retinaspecialist #CorneaSpecialist

About Author

Comments

  • No Comment

Leave Comment